কাজের অজুহাতে
বাতিল পুরীগামী ট্রেন

ক্ষুব্ধ পর্যটকরা

কাজের অজুহাতে<br>বাতিল পুরীগামী ট্রেন
+

নিজস্ব প্রতিনিধি : কলকাতা, ১১ই সেপ্টেম্বর— রেলের খামখেয়ালির জন্য দারুণ সমস্যা পড়ে গেলেন পুরীগামী পর্যটকরা। রেলের তরফে হঠাৎই এস এম এস করে যাত্রীদের জানিয়ে দেওয়া হলো মঙ্গলবার থেকে টানা বারো দিন পুরী লাইনে কাজের জেরে সব ট্রেন বাতিল করা হলো। দক্ষিণ-পূর্ব রেলের এই আচমকা ঘোষণায় সমস্যা পড়ে গেলেন প্রচুর নিয়মিত যাত্রীর সঙ্গে পর্যটকরাও। ভেস্তে গেল অনেকেরই পুজোর আগে পুরী ঘোরা। হাতে কনফার্ম টিকিট থাকলেও তা বাতিল করার জেরে ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন পর্যটকরা। 
আচমকা এই এস এম এস পেয়ে অনেকেতো বিশ্বাসই করতে পারেননি। খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন দক্ষিণ-পূর্ব রেলের তরফে যে বার্তা পাঠানো হয়েছে তা সঠিক। এস এম এস-এ জানানো হয়েছে পুরী স্টেশনে কাজ শুরু হওয়ার দরুন এই সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। আর এই মেরামতির জেরে ১২ই সেপ্টেম্বর থেকে ২৫ই সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ওই লাইন দিয়ে কোনও দূরপাল্লা ট্রেন চালানো যাবে না। পুরোদস্তুর লাইন বন্ধ করে ওই কাজ করার জন্যই ওই শাখায় কোনও ট্রেনই চালানো যাবে না। 
এই প্রসঙ্গে দক্ষিণ-পূর্ব রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক সঞ্জয় ঘোষ জানাচ্ছেন,  সংস্কারের কাজ শুরুর জন্যেই এই সিদ্ধান্ত। সংস্কার কাজের সঙ্গে যুক্ত দল হঠাৎ করে সবুজ সংকেত দেওয়া জন্যই তাড়াতাড়ি কাজ শুরু হচ্ছে। তবে ১২ই সেপ্টেম্বর যে কাজ শুরু করা যাবে সেটা আগে কারো জানা ছিল না। হঠাৎ এই ঘোষণার জেরে যাত্রীদের একটু ভোগান্তি হবে তা স্বীকার করে নিয়েছেন মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক। 
ভারতীয় রেল সূত্রে জানা গিয়েছে, এর আগে ২০১৫সালে পুরী-খুরদা রোড মধ্যের সিঙ্গল লাইনকে পরিবর্তন করে ডবল লাইন করা হয়েছিল। তখনও বেশ কিছুদিন বন্ধ রাখতে হয়েছিল ওই রেলপথ। হাওড়া-চেন্নাই মেন লাইনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ জংশন স্টেশন খুরদা রোড। এখান থেকে পুরীর শাখাটি ভাগ হয়ে গিয়েছে। দিনে কমপক্ষে ৫০-এর উপর ট্রেন আসা-যাওয়া করে পুরী স্টেশনের ওপর দিয়ে।
টানা ১২দিন ধরে কী কাজ হবে তার একটা ফিরিস্তিও দিয়েছেন সঞ্জয় ঘোষ। তিনি জানিয়েছেন, প্ল্যাটফর্মগুলির দৈর্ঘ্য বাড়ানো হবে। দৈর্ঘ্য বাড়ানোর সঙ্গে ইয়ার্ডের নকশা, সিগন্যাল ব্যবস্থা, ওভারহেড তার সব কিছুর পরিবর্তন করা হবে। এখন ২২কোচের ট্রেন দাঁড়াতে এই প্ল্যাটফর্মগুলিতে অসুবিধা হয়। তবে এই কাজের জন্য ২৬কোচের ট্রেন দাঁড়াতেও কোনও অসুবিধা হবে না।  
এদিকে, পুরীতে যেতে না পারায় ক্ষুব্ধ পর্যটকের দল গোটা ঘটনায় দুষছেন রেলের পরিকল্পনাকে। যাত্রীদের দাবি, এমন একটা সম্ভাবনা থাকলে রেল কনফার্মড টিকিট বিক্রি বন্ধ করল না কেন ? ঘুরতে যাওয়ার পাশাপাশি পুরীতে নিয়মিত যান প্রচুর ব্যবসায়ী। তাঁরা অনেকেই হোটেল বুক করে ফেলেছেন। রেলের টাকা ফেরত পেলেও হোটেলের ভাড়া কী করে ফেরত মিলব ? প্রশ্ন তুলছেন পর্যটকরা।  

 

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement