এবার বোনাসের দাবিও
করলেন চা শ্রমিকরা

এবার বোনাসের দাবিও<br>করলেন চা শ্রমিকরা
+

নিজস্ব সংবাদদাতা: বাগডোগরা, ১১ই সেপ্টেম্বর— চা বাগান শ্রমিকদের কাছ থেকে উঠে এল ন্যূনতম মজুরি বৃদ্ধির সঙ্গে কুড়ি শতাংশ বোনাসের দাবি। তরাই ও উত্তর দিনাজপুর জেলার চা বাগান শ্রমিক ও শ্রমিক ইউনিয়নগুলোকে নিয়ে মঙ্গলবার বাগডোগরায় আয়োজিত হয় জয়েন্ট ফোরামের কনভেনশন। যেখানে ২৯টি চা বাগান শ্রমিক ইউনিয়নের যৌথ মঞ্চের নেতৃত্বের সঙ্গে খোলামেলা আলোচনা করেন চা বাগান শ্রমিকরা। কনভেনশনে উপস্থিত ছিলেন চা বাগান শ্রমিক আন্দোলনের নেতা সমন পাঠক, গৌতম ঘোষ, প্রতাপ কুজুর, সুদীপ দত্ত প্রমুখ। তাঁরা বলেন, ন্যূনতম মজুরি বৃদ্ধি আদায়যোগ্য দাবি। এখান থেকে পিছানোর কোনও জায়গা নেই। আন্দোলনে চাপ আছে বলে ন্যূনতম মজুরি লাগু হবেই বলে আশাবাদী জয়েন্ট ফোরাম। চিয়াকামান মজদুর ইউনিয়নের দার্জিলিঙ জেলা সম্পাদক গৌতম ঘোষ বলেন, চা এমন একটি শিল্প যেখানে কখনো লোকসান হয় না। চা শিল্প থেকে আসছে বিদেশি মুদ্রাও। তার ওপর এবছর চা শিল্পে মুনাফাও হয়েছে অনেক বেশি। চা বাগান শ্রমিকদের ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত করতে মালিকপক্ষ লোকসান দেখানোর চেষ্টা করে। তাই কুড়ি শতাংশ পুজোর বোনাসের দাবি জানাবে জয়েন্ট ফোরাম। জয়েন্ট ফোরামের দীর্ঘ লড়াই চা বাগান শ্রমিকদের ২৩৯টাকা ন্যূনতম মজুরির সিদ্ধান্ত রাজ্য সরকারকে মানতে বাধ্য করেছে। সেই বার্তা পাহাড়, তরাই এবং ডুয়ার্সের চা বাগান শ্রমিকদের কাছে পৌঁছে দিতেই একাধিক সমাবেশ করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছিল ২৬শে আগস্ট জয়েন্ট ফোরামের বৈঠক থেকে। ৮ই সেপ্টেম্বর জলপাইগুড়ি জেলার চালসা, ৯ই সেপ্টেম্বর দার্জিলিঙের পর এদিন বাগডোগরায় আয়োজিত হয় তৃতীয় কনভেনশন। একই সঙ্গে এদিন জলপাইগুড়ি জেলার মালবাজার ব্লকের প্রত্যেকটি চা বাগানে গেট মিটিং হয়। চা বাগান শ্রমিক আন্দোলনের নেতা রামলাল মুর্মু, দিলকুমার ওঁরাও, কে বি লামা, শংকর বিশ্বাসসহ নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন গেট মিটিংগুলিতে।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement