ধৃত সমাজকর্মীরা
‘গৃহবন্দি’ ১৭ই পর্যন্ত

সংবাদসংস্থা   ১৩ই সেপ্টেম্বর , ২০১৮

নয়াদিল্লি, ১২ই সেপ্টেম্বর- মহারাষ্ট্র পুলিশের হাতে ধৃত পাঁচ সমাজকর্মীর ‘গৃহবন্দি’ থাকার মেয়াদ ১৭ই সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাড়িয়ে দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। বুধবার শুনানি ছিল শীর্ষ আদালতে। কিন্তু এদিন আইনজীবীর ব্যস্ততার কারণে শুনানি হতে পারেনি। ২৮শে আগস্ট দেশের নানা প্রান্ত থেকে পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে পুনের পুলিশ। এ বছরের ১লা জানুয়ারি মহারাষ্ট্রের ভীমা কোরেগাঁওয়ের দলিত সমাবেশকে ঘিরে হাঙ্গামার ঘটনাকে কারণ হিসাবে দেখিয়ে দেশের ছয় শহরে হানা দেয় পুনের পুলিশ। গ্রেপ্তার করা হয় কবি-সমাজকর্মী ভারভারা রাও, ট্রেড ইউনিয়ন নেত্রী সুধা ভরদ্বাজ, আইনজীবী অরুণ ফেরেইরা, সমাজকর্মী লেখক ভেরনন গঞ্জালভেস ও সাংবাদিক গৌতম নাভলাখাকে। এঁদের মধ্যে রাও, ফেরেইরা এবং গঞ্জালভেসকে পুনেয় নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু নাভলাখাকে দিল্লি থেকে সরানো যাবে না বলে রায় দেয় দিল্লি হাইকোর্ট। একই রকম রায় পান ভরদ্বাজও। ২৯শে আগস্ট সুপ্রিম কোর্টে ধৃতদের মুক্তির আবেদন জানান প্রবীণ ইতিহাসবিদ রোমিলা থাপার, অর্থনীতিবিদ প্রভাত পট্টনায়েক, পদ্মশ্রী সম্মানপ্রাপ্ত অর্থনীতিবিদ দেবিকা জৈন, দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজতত্ত্বের অধ্যাপক সতীশ দেশপান্ডে এবং আইনজ্ঞ মাজা দারুওয়ালা। তাঁদের আবেদনের শুনানি করে সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশ দেয় কাউকেই পুলিশ হেপাজতে নেওয়া যাবে না, ধৃতরা থাকবেন নিজের বাড়িতেই ‘গৃহবন্দি’ অবস্থায়। ৬ই সেপ্টেম্বর এই মেয়াদ একদফায় বাড়ানো হয়েছিল। বুধবার রোমিলা থাপার ও অন্যান্য আবেদনকারীর আইনজীবী অভিষেক সিংভি আবেদন জানান তাঁর অন্য মামলার শুনানি চলায় দুপুরের পরে শুনানি করা হোক। দুপুরের পরেও শেষ পর্যন্ত এই মামলার শুনানি আর শুরু করা যায়নি। প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র, ওয়াই ভি চন্দ্রচূড়, এ এম খানউইলকারের বেঞ্চ ১৭ই সেপ্টেম্বর পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেছে।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement