শিশুশ্রমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক
শিক্ষিকাদের বেতন মেটানোর দাবি

নিজস্ব সংবাদদাতা   ২৬শে সেপ্টেম্বর , ২০১৮

বাঁকুড়া, ২৫শে সেপ্টেম্বর— শিশুশ্রমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষিকা , কর্মীদের পাওনা বেতন ও ছাত্রছাত্রীদের ভাতা মেটানোর দাবিতে মঙ্গলবার শিশুশ্রমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষিকারা ফের সরব হলেন।মঙ্গলবার মিছিল করে অবস্থানের মধ্যে দিয়ে তাঁরা বাঁকুড়া ডেপুটি শ্রম কমিশনারের কাছে ডেপুটেশন দেন।

বাঁকুড়া জেলার শিশুশ্রমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষিকা, শিক্ষাকর্মীদের নিয়ে দিনের পর দিন সংশ্লিষ্ট বিভাগ ছিনিমিনি খেলছে।মর্যাদা দেওয়া তো দূরের কথা, জেলা প্রশাসনের কাছে এই শিক্ষক শিক্ষিকাদের তাচ্ছিল্যই একমাত্র প্রাপ্য। পরিবর্তনের জমানায় ২০১২সাল থেকে চলতি বছরের অক্টোবর মাস পর্যন্ত ৩৬মাসের বেতন ধরে কোনও বেতন পাননি এঁরা। খালি তাঁদেরই নয়, স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের মাসিক ১৫০টাকা করে যে ভাতা দেওয়া হতো তাও ৫২মাস বন্ধ। এই শিক্ষক শিক্ষিকারা গ্রামে গ্রামে ঘুরে নানা ক্ষেত্রে শ্রমিকের কাজ করা শিশু কিশোরদের নিয়ে এসে স্কুল চালান। অনেক প্রতিকূল অবস্থার মধ্যেই তাঁদের কাজ করতে হয়। শিশুশ্রমিকের পরিবার ও কাজের মালিককে বুঝিয়ে তাদের নিয়ে আসতে হয়। এই শিশুরা স্কুলে পড়াশোনা করে ফের অন্য সময় কাজ করে।শিশুশ্রমিক বিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা করে বহু ছেলে মেয়ে স্নাতক, এমনকি স্নাতকোত্তর পর্যায় পর্যন্ত পড়াশোনা করছে। বাঁকুড়া জেলায় এক্ষেত্রে ২০০ শিক্ষক শিক্ষিকা আছেন। ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা ২হাজারের মতো। ছাত্রছাত্রীরা প্রতিমাসে এই স্কুলে আসার জন্য ১৫০টাকা করে ভাতা পেত, তাদের দেওয়া হতো খাতাও। সে সব ৫২মাস বন্ধ হয়ে গেছে। বাকি শিক্ষক শিক্ষিকাদের ৩৬মাসের বেতনও। মাসে ৫-৮হাজার টাকা এঁরা পেতেন। বহু শিক্ষকের এই কাজের মধ্য দিয়েই সংসার প্রতিপালন করতে হতো। চরম অনটনের মধ্যে পড়েও এঁরা প্রতিদিন স্কুল করে যাচ্ছেন। তাঁদের প্রাপ্য বেতনের দাবিতে বাঁকুড়া প্রকল্প আধিকারিকের কাছে বারে বারে ডেপুটেশন দিলেও কোনও সুরাহা হয়নি। এদিন সংগঠনের সভাপতি সুদীপ সেন জানান, আমরা আর টি আই করে জেনেছি বাঁকুড়া জেলায় শিক্ষকদের বেতন এসে পৌঁছালেও তাঁদের হাতে তা তুলে দেওয়া হচ্ছে না।এদিনও ডেপুটেশন দিতে গেলে প্রকল্প আধিকারিক তথা ডেপুটি শ্রম কমিশনার এঁদের সঙ্গে ভাল ব্যবহার করেননি বলে অভিযোগ। কেন ডেপুটেশন দেওয়া হচ্ছে সেই প্রশ্ন তোলা হয়। শিক্ষক শিক্ষিকা, ছাত্রছাত্রীদের প্রাপ্য পাওনা মেটানোর কোনও প্রতিশ্রুতিই দেননি তিনি। এদিন শিশুশ্রমিক শিক্ষক সংগঠনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে আগামী ৪ঠা অক্টোবর তাঁরা ফের বাঁকুড়ায় এসে আন্দোলনে শামিল হবেন।

Current Affairs

Featured Posts

Advertisement